Friday, October 7, 2022
Homeসব খবরজাতীয়দেশের ইতিহাসের সবচেয়ে বড় বাজেট আজ

দেশের ইতিহাসের সবচেয়ে বড় বাজেট আজ

দেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় বাজেট পেশ আজ। বাজেট অধিবেশন ঘিরে এরই মধ্যে শেষ হয়েছে সব প্রস্তুতি। ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট উত্থাপন করবেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। চলতি অর্থবছরের সংশোধিত আকার থেকে ১২ শতাংশ বাড়িয়ে চূড়ান্ত করা হয়েছে ৬ লাখ ৩ হাজার ৬৮১ কোটি টাকার বাজেট। যেখানে প্রথমবারের মতো রেকর্ড ঘাটতি ছাড়াচ্ছে জিডিপির ৬ দশমিক ২ শতাংশ। টাকার সংস্থান কোথা থেকে হবে তা নিয়ে সুস্পষ্ট রূপরেখা না থাকলেও পরিকল্পনা মন্ত্রী বলছেন, মহামারীকালের এই বাজেট হবে বাস্তবায়নযোগ্য। বিস্তারিত জানাচ্ছেন বাবু কামরুজ্জামান।

টানা প্রায় দেড় বছর ধরে করোনাকে সাথে নিয়ে চলা অর্থনীতির ক্ষত এখনো সেরে ওঠেনি। স্থবির হয়ে পড়া ব্যবসা বাণিজ্য আর ভঙ্গুর স্বাস্থ্য ব্যবস্থা কে ঢেলে সাজাতে আসছে নতুন বাজেট। যদিও মাহামারীকালের বাজেট ঘিরে নেই উৎসবের রঙ। বরং সীমিত সামর্থ্যে অর্থমন্ত্রী বাজেটের সুফল তুলে দিতে চান সব শ্রেণীর মানুষের কাছে।

করোনায় কাজ হারানো মানুষের কর্মসংস্থান; অর্থনীতি পুনরুদ্ধার আর স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করার বড় চ্যালেঞ্জ মাথায় নিয়েই বৃহস্পতিবার উত্থাপন হতে যাচ্ছে ৬ লাখ ৩ হাজার কোটি টাকার বাজেট যা এরই মধ্যে চুড়ান্ত। যেখানে সার্বিক উন্নয়ন ব্যয় ২ লাখ ৩৭ হাজার কোটি টাকা বাদ দিলে ৩ লাখ সাড়ে ৬১ হাজার কোটি টাকাই যাচ্ছে পরিচালন বা অনুন্নয়ন খরচে। যার মধ্যে দায় দেনা বাবদ অভ্যন্তরীণ ও বৈদেশিক ঋণের সুদ গুণতে হবে সাড়ে ৬৮ হাজার কোটি।

চলতি অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটের তুলনায় আসছে বাজেটের আকার ১২ শতাংশ বাড়লেও রাজস্ব আদায়ে এনবিআরের লক্ষ্য স্থির রাখা হয়েছে।সংগ্রহের দায়িত্ব দেয়া হচ্ছে ৩ লাখ ৩০ হাজার কোটি। ফলে ঘাটতি বেড়ে দাড়িয়েছে রেকর্ড ২ লাখ সাড়ে ১৪ হাজার কোটি। যা জিডিপির প্রায় সোয়া ৬ শতাংশ। ব্যবসায়ীরা বলছেন বাড়াতে হবে বেসরকারি বিনিয়োগ। তাই দিতে হবে করছাড়।

নতুন বাজেটে ঘাটতি মেটাতে সবচেয়ে বড় নির্ভরতা বিদেশি ঋণ। যেখান থেকে লক্ষ্য ধরা হচ্ছে প্রায় ৯৮ হাজার কোটি টাকা। যা সংশোধিত বাজেটের তুলনায় ৩০ শতাংশ বেশি। এছাড়া ব্যাংক ব্যবস্থা থেকে ঋণের লক্ষ্য ধরা হয়েছে সাড়ে ৭৬ হাজার কোটি। তবু পরিকল্পনা মন্ত্রীর আস্থা আসছে বাজেট হবে বাস্তবায়ন যোগ্য। নতুন বাজেটের মাধ্যমে অর্থনীতির আয়তন বা জিডিপি বাড়ানোর লক্ষ্য ধরা হচ্ছে ৭ শতাংশের বেশি।

Advertisement